আপনি পড়ছেন

পারমাণবিক শক্তির আন্তর্জাতিক বাজারে রাশিয়া ও চীনের দাপটের মুখে কোনঠাসা হয়ে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্র। গত পাঁচ বছরে সারাবিশ্বে যত পারমাণবিক চুল্লি স্থাপন হয়েছে, তার ৮৭ শতাংশেরই নকশা করেছে রাশিয়া অথবা চীন। ব্রাজিল থেকে বাংলাদেশ পর্যন্ত বহু দেশে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের চুক্তি করেছেন মস্কো ও বেইজিংয়ের কর্মকর্তারা। গুরুত্বপূর্ণ এ খাতটিতে চীন রাশিয়ার সঙ্গে পাল্লা দিতে গতকাল একটি আইন পাশ করেছে মার্কিন সিনেট।

us nuclear powe plantপারমাণবিক শক্তির আন্তর্জাতিক বাজারে রাশিয়া চীনের দাপটের মুখে কোনঠাসা যুক্তরাষ্ট্র

মার্কিন সিনেটের ওয়েবসাইটে প্রদত্ত তথ্যে জানা গেছে, সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটি গতকাল ইন্টারন্যাশনাল নিউক্লিয়ার এনার্জি শিরোনামে একটি বিল অনুমোদন করেছে। কমিটির রিপাবলিকান দলীয় র‌্যাংকিং মেম্বার জিম রিশ এ আইনের সহ-প্রস্তাবক। আরেক সহ-প্রস্তাবক হলেন সিনেটের এনার্জি অ্যান্ড ন্যাচারাল রিসোর্সেস কমিটির চেয়ারম্যান, ডেমোক্রেটিক দলীয় সিনেটর জো মানচিন। নতুন আইনটি মার্কিন মিত্রদের সঙ্গে সহযোগিতা বৃদ্ধি এবং আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি বাজারে রাশিয়া ও চীনের ক্রমশ বাড়তে থাকা প্রভাব খর্ব করতে সহায়ক হবে।

কমিটিতে বিল পাশ হওয়ায় সন্তোষ জানিয়ে সিনেটর জিম রিশ বলেছেন, পারমাণবিক শক্তির পরিচ্ছন্ন ও নিরাপদ সক্ষমতা অফুরান সম্ভাবনা রাখে। পারমাণবিক প্রযুক্তি উদ্ভাবনে আমেরিকার নেতৃত্ব যুক্তরাষ্ট্রের সামর্থ্য বৃদ্ধি এবং জাতীয় নিরাপত্তাজনিত স্বার্থ সুরক্ষায় অতি জরুরি। নতুন আইন পারমাণবিক জ্বালানি ও নিরাপত্তা খাতে উদ্ভাবনের গতি বৃদ্ধি এবং ওইসব উদ্ভাবনকে বহির্বিশ্বে মার্কিন প্রভাব খাটানোর প্রয়োজনে ব্যবহারের পথ সৃষ্টি করবে।

ডিফেন্স ওয়ানের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পারমাণবিক শক্তির আন্তর্জাতিক বাজারে রাশিয়া ও চীনের প্রভাব এবং পারস্পরিক সহযোগিতার কাছে কোনঠাসা হয়ে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্র। পঞ্চাশের দশকে চীনের প্রথম পারমাণবিক চুল্লি নির্মাণে সহযোগিতা করে রাশিয়া। নব্বই দশকে দুই দেশ যৌথভাবে কয়েকটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে। পারমাণবিক শক্তির বাজার ও পারমাণবিক প্রযুক্তিতে রাশিয়া এখনও অন্যদের চেয়ে বিরাট ব্যবধানে এগিয়ে প্রথম স্থানে রয়েছে। তবে চীনের সক্ষমতাও বাড়ছে। গত পাঁচ বছরে সারাবিশ্বে মোট পারমাণবিক চুল্লির ৮৭ শতাংশই রাশিয়া অথবা চীনের হাতে স্থাপিত হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ইন্টারন্যাশনাল নিউক্লিয়ার এনার্জি অ্যাক্টে বেসামরিক পারমাণবিক প্রযুক্তি রপ্তানির সমন্বয়ের জন্য নতুন একটি দপ্তর খোলার কথা বলা হয়েছে। এ দপ্তর বিভিন্ন দেশে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্যোগে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র অর্থায়নের সম্পর্ক দেখভালের পাশাপাশি মার্কিন প্রযুক্তি রপ্তানির জন্য একটি ওয়ার্কিং গ্রপ গঠন করবে। একইসঙ্গে, মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলোর অর্থায়নে স্ট্র্যাটেজিক ইনফ্রাস্ট্রাকচার ফান্ড ওয়ার্কিং গ্রুপ নামে একটি কাঠামো গঠন করবে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর