আপনি পড়ছেন

জাপানের ক্রমহ্রাসমান জন্মহার বৃদ্ধি করতে পরিবারগুলোকে সন্তান নিতে উদ্বুদ্ধ করছে। তাদের উৎসাহিত করতে সন্তান জন্মদানের সময় প্রদেয় অনুদানের পরিমাণও বৃদ্ধি করছে দেশটির স্বাস্থ্য, শ্রম ও কল্যাণ মন্ত্রণালয়। তবে এতেও আশানুরূপ ফল দেখছে না জাপান সরকার।

japan childজাপানে বিয়ে বা সন্তানের প্রতি নতুন প্রজন্মের আগ্রহ অনেক কম

জাপানে প্রতিটি শিশুর জন্মের সময় জন্মকালীন খরচ ও অনুদান হিসেবে চার লাখ ২০ হাজার ইয়েন দেওয়া হয়। দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী কাতসুনোবু কাতো বলেছেন, তারা এই সহায়তা তহবিলের পরিমাণ বাড়িয়ে পাঁচ লাখ ইয়েন করতে চান। বিষয়টি নিয়ে তিনি গত সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদার সাথে আলোচনায় বসেছিলেন। আশা করা হচ্ছে, এই পদক্ষেপটি ২০২৩ অর্থবছরের জন্য অনুমোদিত হবে।

জানা গেছে, জাপানে বাচ্চা নিতে না চাওয়ার অন্যতম প্রধান কারণ হলো ক্রমবর্ধমান খরচ। সরকারি অনুদান জাপানের পাবলিক মেডিকেল ইন্স্যুরেন্স সিস্টেম দ্বারা সমর্থিত হলেও শিশু জন্মের খরচ অভিভাবককেই বহন করতে হয়। এ খরচের পরিমাণ গড়ে প্রায় চার লাখ ৭৩ হাজার ইয়েন।

japan paying to boost birth rateজন্মহার বাড়াতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে জাপান সরকার

সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, সব দিক বিবেচনা করে সরকার বর্তমান সময়ের সহায়তার সাথে ৮০ হাজার ইয়েন যুক্ত করছে। ২০০৯ সালের পর এবারই প্রথমবারের মতো অংকটি বাড়ানো হচ্ছে। সরকার আশা করছে, এর ফলে পরিবারগুলো সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞ থাকবে।

মূলত শুধু শিশুর জন্মদানই নয়, জাপানে বিভিন্ন সময় পরিচালিত জরিপে দেখা গেছে, দেশটির রেকর্ডসংখ্যক নারী ও পুরুষ বিয়ে করতেই অনাগ্রহী। বিষয়টি জাপানের জন্মহারের ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলছে। গবেষকরা আশঙ্কা করছেন, এভাবে চলতে থাকলে দেশটির জনসংখ্যা ও কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী হ্রাস পাবে।

এ বছরের শুরুর দিকে জাপানে প্রকাশিত এক সমীক্ষায় দেখা যায়, জাপানে পুরুষ ও নারীদের একটা বিরাট অংশ বিয়ে করতে আগ্রহী নয়। তাদের মধ্যে ২৫ দশমিক ৫ শতাংশ পুরুষ, ২৫ দশমিক ৪ শতাংশ নারী অবিবাহিত থাকতে চান। স্বাধীন থাকতে চাওয়াকে প্রধান কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন জরিপে অংশ নেয়া নারী-পুরুষেরা। অনেকে আবার সাংসারিক নানা ঝুটঝামেলার কথা বলেন।

আলাদাভাবে নারীরা জানান, বিয়ের পর সংসারের কাজকর্ম, শিশু লালন-পালন, পরিবারের দেখভালের দায়িত্ব নিতে হয়, তাই তারা বিয়ে করতে চান না। আবার পুরুষরা জানিয়েছে, আর্থিক সক্ষমতার অভাব, চাকরির অনিশ্চয়তা, সংসারের বাড়তি দায়িত্বের কারণে তারা বিয়ে করতে চায় না।

বিয়ে না করার এই প্রবণতা থেকে কমছে শিশু জন্মদানের হার। গত ছয়-সাত বছর ধরে শিশুর জন্মের হার হ্রাস পাচ্ছে। এটি আরও কমবে বলে সতর্ক করা হয়েছে সংশ্লিষ্ট বিভাগ থেকে। এ থেকে উত্তরণে বিয়ে, সন্তান জন্মদানের বিষয়ে ইতিবাচক প্রচারণার কথা বলা হয়। নারী-পুরুষ যাতে বিয়েতে উৎসাহী হয়, সন্তান জন্মদানে আগ্রহী হয়, সে রকম পরিবেশ সৃষ্টির আহ্বান জানানো হয়। এর বাইরে তরুণ-তরুণীদের জন্য চাকরির নিশ্চয়তা, একক পরিবার গঠনের সুবিধা তৈরি, কর কমানোর মতো বিষয়গুলোও বিবেচনায় নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

Get the latest world news from our trusted sources. Our coverage spans across continents and covers politics, business, science, technology, health, and entertainment. Stay informed with breaking news, insightful analysis, and in-depth reporting on the issues that shape our world.

360-degree view of the world's latest news with our comprehensive coverage. From local stories to global events, we bring you the news you need to stay informed and engaged in today's fast-paced world.

Never miss a beat with our up-to-the-minute coverage of the world's latest news. Our team of expert journalists and analysts provides in-depth reporting and insightful commentary on the issues that matter most.