আপনি পড়ছেন

আফগানিস্তানে ব্রিটিশ সেনারা আফগানিস্তানে নিরস্ত্র মানুষকে হত্যা করেছিল বলে তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে। ব্রিটেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ঘোষণা করেছে, এক দশক আগে আফগানিস্তানে ব্রিটিশ সৈন্যদের বেআইনি হত্যার অভিযোগ তদন্ত করেছে। তদন্তে সেনাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। সেনারা মানুষ হত্যার প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হতো বলেও প্রতিবেদনে প্রকাশ হয়েছে। খবর টিআরটি ওয়ার্ল্ড।

british troops in afghanistanআফগানে মানুষ হত্যার প্রতিযোগিতায় নামত ব্রিটিশ সেনারা!

বিবিসি টেলিভিশনের প্যানোরামা প্রোগ্রামের জুলাই মাসের তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ হয় গতকাল বৃহস্পতিবার। প্রতিবেদনে দেখা যায়, ব্রিটিশ অভিজাত বিশেষ বিমান পরিষেবার (এসএএস-সাস) সৈন্যরা সন্দেহজনক পরিস্থিতিতে ৫৪ জন নিরস্ত্র আফগান ব্যক্তিকে হত্যা করেছে।

সাস সেনারা নিরস্ত্র আফগান পুরুষদের নিয়মিতভাবে রাতের বেলা অভিযানের সময় ঠান্ডা মাথায় গুলি করে হত্যা করত এবং অপরাধের ন্যায্যতা দেওয়ার জন্য নিহতদের হাতে অস্ত্র দিয়ে গণমাধ্যমে ছবি সম্প্রচার করা হতো। চার বছরের তদন্তে বিষয়টি প্রকাশ পেয়েছে। যেসব বেসামরিক লোক সাস স্কোয়াড্রনের সাথে কাজ করত, তারা সাস সদস্যদের কিলিং মিশন সরাসরি দেখেছে।

সাবেক সৈন্যদের বিবরণ অনুসারে, একটি ঘটনায় নিহত আফগান নাগরিকের হাতে একে-৪৭ রেখে হত্যাকাণ্ডকে বৈধ দেখানো হয়েছিল। এ রকম ঘটনা কত স্থানে ঘটেছে তার বিবরণ প্রতিবেদনে আসেনি। তবে বাহিনীর কিছু সেনা আফগান নাগরিক হত্যায় প্রতিযোগিতায় মেতে উঠেছিল। কে সবচেয়ে বেশি হত্যা করতে পারে, এমন প্রতিযোগতিা ছিল সেনাদের মাঝে।

এই তদন্ত নতুন বছরের শুরুতে আবার শুরু হবে। নতুন তদন্তের নেতৃত্ব দেবেন সিনিয়র বিচারক চার্লস হ্যাডন কেভ। ২০১০ সালের মাঝামাঝি থেকে ২০১৩ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত আফগানিস্তানে ব্রিটিশ সেনাদের করা অপরাধ তদন্ত করা হবে। তদন্তে সৈন্যদের আচরণ সম্পর্কে উত্থাপিত অভিযোগের সত্যতা যাচাই করবে।

ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা সেক্রেটারি বেন ওয়ালেস এক বিবৃতিতে বলেছেন, সব অভিযোগ যথাযথ তদন্ত নিশ্চিত করতে চাই। পুনঃতদন্ত যাতে না করতে হয় এজন্য পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে তদন্ত করা হবে। অভিযোগ তদন্তে সেনাদের গুরুতর অপরাধ ইউনিট গঠন করা হয়েছে।

জুনিয়র প্রতিরক্ষা মন্ত্রী অ্যান্ড্রু মারিসন সংসদকে বলেছেন, যুক্তরাজ্যের সশস্ত্র বাহিনী যথাযথভাবে সর্বোচ্চ সম্ভাব্য অপারেশনাল মান ধরে রাখে। অপারেশনগুলো অবশ্যই আইনের সুস্পষ্ট বিধি মোতাবেক পরিচালিত হতে হবে এবং বিশ্বাসযোগ্য অভিযোগগুলোর ব্যাপারে কোনোভাবেই লামসাম তদন্ত করা যাবে না।

আফগানিস্তানের নুরজাই পরিবারের একজন সদস্য লন্ডনভিত্তিক আইন সংস্থার মাধ্যমে প্রকাশিত একটি বিবৃতিতে জানিয়েছেন, আমার পরিবার ১০ বছর অপেক্ষা করেছে কেন তাকে হত্যা করা হয়েছে তা জানতে। আমরা খুশি যে, অবশেষে এত বছর পর কোনো পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত হচ্ছে। দায়ীদের একদিন জবাবদিহি করা হবে, এই আশায় আমরা বেঁচে আছি।

Get the latest world news from our trusted sources. Our coverage spans across continents and covers politics, business, science, technology, health, and entertainment. Stay informed with breaking news, insightful analysis, and in-depth reporting on the issues that shape our world.

360-degree view of the world's latest news with our comprehensive coverage. From local stories to global events, we bring you the news you need to stay informed and engaged in today's fast-paced world.

Never miss a beat with our up-to-the-minute coverage of the world's latest news. Our team of expert journalists and analysts provides in-depth reporting and insightful commentary on the issues that matter most.