আপনি পড়ছেন

বর্ষা প্রায় শেষ হতে চললো। তবু রিমঝিম বৃষ্টির যেনো শেষ নেই। বর্ষার দিনে গৃহিণীর কষ্ট একটু বেশিই হয়ে থাকে। ব্যক্তিগত কাপড়-চোপড় থেকে শুরু করে ঘরের সবকিছুই রাখতে হয় একটু বাড়তি যত্নে। অন্যথায় কষ্ট শুধু বেড়েই চলবে।

এই সময়ে বাড়িঘর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা অনেক কষ্ট। বৃষ্টির ছাঁট এসে ঘরের ভিতরটা ভিজিয়ে গেলো তো পরক্ষণেই ঘরের কর্তা বাহির থেকে জুতা পায়ে এসে ঘরের সামনেটা নোংরা করে দিলেন। এছাড়া বাচ্চাকাচ্চার কাপড়ে কাদার দাগ তো আছেই। বড়রাও কম যায় না। অফিস ফেরত জামা-কাপড়ে কাদাপানির দাগের অভাব নেই।

সবচেয়ে উপভোগ্য এই ঋতুতে হাজারটা বাড়তি কাজের অবতারণা হয়। এই ঝামেলা থেকে মুক্তি পেতে নিয়ম মাফিক চলতে হবে আপনাকে।

প্রতিদিন বাচ্চার কাপড় চোপড়ে চোখ বুলিয়ে নিন। কাদার দাগ পেলে তাৎক্ষণিকভাবে ধুয়ে ফেলুন। বড়দের কাপড় চোপড়ে কাদার দাগ লাগলে সাথে সাথেই ধুয়ে দিন। নয়তো এই দাগ থেকেই যাবে।

বৃষ্টির দিন ঘরে কাদা আসা ঠেকাতে সদর দরজার বাইরে বাড়তি একটা পাপোষ দিন। এর ফলে কাদা থেকে মুক্ত থাকবেন।

বর্ষায় ঘরের আলমারিতে তুলে রাখা কাপড় চোপড় একটু নেতিয়ে আসে। তাই সুযোগ পাওয়া মাত্র আলমারিতে তুলে রাখা কাপড় চোপড় রোদে শুকাতে দিন। এতে কাপড়ের ভেজা ভাবটুকু দূর হয়ে মসৃণ হবে।

এই সময়ে শিশুদের বাইরের পানিতে খেলাধুলা করা থেকে দূরে রাখুন। বর্ষার পানিতে নানারকম রোগ-জীবাণু মিশে থাকে। এ থেকে পানিবাহিত বিভিন্ন রোগ ছাড়াও খাজলি, খোসপাঁচড়া হতে পারে।

বাড়ির চারপাশে জমে থাকা বৃষ্টির পানি দ্রুত পরিষ্কার করুন। একটু সুযোগ পেলেই জমে থাকা পানিতে মশা জন্ম নেবে। তাই ঘর বা বাড়ির আশেপাশে কোনো গর্ত, নারিকেলের মালা, ফুলের টব, ভাঙ্গা প্লেট, গ্লাস ইত্যাদিতে পানি জমে থাকলে পরিষ্কার করার ব্যবস্থা নিন।

 

আপনি আরও পড়তে পারেন

ঘরের পিঁপড়া দূর করুন খুব সহজে

আপ্যায়নের পর বাসন-কোসনের যত্ন

সাদা কাপড় হবে ধবধবে সাদা