আপনি পড়ছেন

স্যাঁতস্যাঁতে আবহাওয়ায় মশা, মাছি, পিঁপড়ার মতো পোকামাকড়ে ঘর নোংরা হয়ে যায়। শুরু থেকে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিলে এই সমস্যা প্রতিরোধ করা সম্ভব।

protect homes from infestat of insects

  • সন্ধ্যে ৬টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ রাখতে পারলে ভাল হয়। কারন এই সময় ঘরে সবচেয়ে বেশি মশা ঢোকে। মশা যাতে বাড়ির ভেতরে ঢুকতে না পারে, তার জন্যে জানালায় নেট লাগান।
  • বাগানে ছোট জলাধার থাকলে বা গার্ডেন পুল থাকলে এতে মাছ রাখুন। মাছ মশার লার্ভা খেয়ে ফেলবে।
  • স্টোররুম, রান্নাঘরের বিন, ঘরের কোণা, আলমারির পিছনের অন্ধকার জায়গাগুলো পরিস্কার রাখুন।
  • ঘরে অকারণে ময়লা জড়ো করবেন না। খবরের কাগজ, ঔষধের ফয়েল, কফ সিরাপের শিশি এগুলো যত জমাবেন তত পোকামাকড়ের উপদ্রব বাড়বে।
  • নারকেলের ছোবড়ার সঙ্গে ধুনো মিশিয়ে মাটির পাত্রে রেখে আগুন জ্বালিয়ে দিন, মশা-মাছি কমবে।
  • রাতে লো ভল্টেজের ব্লু বাল্ব অন করে রাখুন। নাইট লাইট মনে করে মশারা কাছে আসবে না।
  • বিছানার ম্যাট্রেসের তলায় শুকনো নিমপাতা রেখে দিন। পিপড়াঁ, সিল্ক ওয়ার্মের মতো পোকা ম্যাট্রেসের তলায় বাসা বাধঁতে পারবে না। প্রতিদিন নিয়ম করে বিছানা পরিস্কার করতে ভুলবেন না।
  • প্রতিদিন ঘরের মেঝে ফিনাইল দিয়ে পরিস্কার করুন। মাঝেমধ্যে একদিন অ্যান্টিসেপটিক লোশন মিশিয়ে মুছলে পোকামাকড় অনেকটাই কমবে।
  • ঘরের বিভিন্ন কোণে, দেয়ালে চিনির সঙ্গে বোরিক পাউডার সমপরিমাণে মিশিয়ে ছড়িয়ে দিন। তেলাপোকার উপদ্রব কমবে।
  • রান্নাঘরে তেলাপোকার সমস্যা ভীষণভাবে দেখা যায়। আনাজের খোসা, ডিমের খোসা, মাছের আশঁ বা ফেলে দেয়া খাবার জমিয়ে রাখবেন না। সঙ্গে সঙ্গে ফেলে দেয়ার চেষ্টা করুন। এতে করে তেলাপোকার সমস্যা অনেকখানি কমানো সম্ভব হবে।

 

আপনি আরোও পড়তে পারেন

মাংস কতোদিন ফ্রিজে রাখবেন?

মশা থেকে রেহাই খুব সহজে

জানুন মাইক্রোওয়েভ ওভেনের ব্যবহার