advertisement
আপনি পড়ছেন

নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখতে ফের টেলিকম খাতে শুল্ক বাড়ানোর চিন্তা-ভাবনা করছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। আগামী অর্থবছরের (২০২০-২১) বাজেটে মোবাইল ফোনের কল রেটের ওপর সম্পূরক শুল্ক আরো বাড়ানোর প্রস্তাব করা হবে। বাজেটে প্রস্তাবটি পাশ হলে গ্রাহকদের ফোনে কথা বলার খরচ আরো বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

mobile phoneফের বাড়ছে মোবাইলে কথা বলার খরচ

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, করোনাভাইরাসের কারণে দেশের অর্থনীতি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কিন্তু এই সময়ে টেলিকম খাতের ব্যবসা ভালোই হয়েছে। ঘরবন্দি থাকায় যেমন মানুষের মোবাইলে কথা বলা বৃদ্ধি পেয়েছে, তেমনি বেড়েছে ইন্টারনেটের ব্যবহার। তাই দেশের এই সংকটময় পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে টেলিকম খাতে শুল্ক আরোপের চিন্তা ভাবনা করছে এনবিআর। এতে স্বাভাবিকভাবেই বাড়বে কল রেট।

বর্তমানে দেশে টেলিকম খাতগুলোকে কল রেটের ওপর ১০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক দিতে হয় সরকারকে। কিন্তু ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে তা বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করার চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। যাতে এই সংকটাকালে দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়।

sim registration

সম্পূরক শুল্ক ছাড়াও বর্তমানে মোবাইল অপারেটরগুলোকে ১৫ শতাংশ ভ্যাট, ১ শতাংশ সারচার্জ এবং অন্যান্য শুল্ক মিলে মোট ২৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ ভ্যাট শুল্ক প্রদান করতে হয় সরকারকে। অর্থাৎ গ্রাহকরা ১০০ টাকার কথা বললে ২৭ দশমিক ৭৭ টাকা কেটে নেওয়া হয় ভ্যাট ও শুল্ক হিসেবে।

২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটে টেলিকম খাতে আরোপিত সম্পূরক শুল্ক ছিল ৫ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরে তা বাড়িয়ে করা হয় ১০ শতাংশ। এই শুল্ক বৃদ্ধির ফলে গতবছরই গ্রাহকদের মোবাইল কল রেট বৃদ্ধি পেয়েছিল। এবারের বাজেটে ফের সম্পূরক শুল্ক বাড়ানো হলে কথা বলার খরচ আরো বাড়বে।