advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 57 মিনিট আগে

২৪ বিলিয়ন ডলারের বেশি অর্থ ব্যয়ে পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করছে উপসাগরীয় দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত। দেশটির এ উদ্যোগ আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা ও পরিবেশকে মারাত্মক হুমকিতে ফেলছে বলে অভিযোগ করেছে কাতার। বিষয়টি লিখিত আকারে আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থাকে (আইএইএ) জানিয়েছে দোহা। শুধু তাই নয়, আমিরাতের এ কেন্দ্রটির নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হস্তক্ষেপ করারও আহ্বান জানিয়েছে দেশটি।

sheikh tamim bin hamadকাতারের আমির শেখ তামিম

পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি নির্মাণ করা হচ্ছে আমিরাতের বারাকায়। কাতারের অভিযোগ, ওই পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রে দুর্ঘটনা ঘটলে বা তেজস্ক্রিয় বিকিরণ ছড়ালে ৫ থেকে ১৩ ঘণ্টার মধ্যে তা দোহায় পৌঁছাবে। এতে আঞ্চলিক পানি সরবরাহ ব্যবস্থার ওপর প্রাণঘাতী প্রভাব ফেলবে। কেননা, সাগরের নোনা পানিকে শোধন করে বিশুদ্ধ পানির প্রয়োজন মেটায় কাতার।

ইউএইএ’র মহাপরিচালক ইউকিয়া আমানোর কাছে পাঠানো ওই চিঠিতে কাতার আরো বলেছে, কেন্দ্রটি নির্মাণে যেসব প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে, তা প্রচলিত নয়। এ ধরনের প্রযুক্তি কেবল দক্ষিণ কোরিয়ার একটি বাণিজ্যিক পরমাণু চুল্লিতে ব্যবহার করা হয়েছে।

emirates nuclear power plantআমিরাতের নির্মাণাধীন পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র

এছাড়া দুর্যোগ মোকাবেলা, স্বাস্থ্য নিরাপত্তা, পরিবেশ রক্ষা এবং সামাজিক নিরাপত্তার ক্ষেত্রে প্রতিবেশী কয়েকটি দেশের সঙ্গে কাতারের সহযোগিতার অভাব রয়েছে। এর ফলে পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি পুরো অঞ্চলের জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে দেখা দেবে।

তবে আমিরাত দাবি করে আসছে, আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখেই তারা পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি নির্মাণ করছে। এতে সর্বোত্তম কর্মধারা মেনে চলা হচ্ছে। ফলে কারো অভিযোগ বা উদ্বেগের কোনো কারণে নেই।

sheikh mujib 2020