advertisement
আপনি দেখছেন

যে ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র ভাইরাস সারা বিশ্বকে ওলট-পালট করে দিচ্ছে, তার আতুড়ঘর চীনের উহানের একটি বন্যপ্রাণীর বাজার। এই বন্যপ্রাণী খাওয়ার মাধ্যমেই মানুষের শরীরে ঢুকে পড়েছে করোনাভাইরাস, এমনটা বলা হলেও এটা অবশ্য এখন পর্যন্ত প্রমাণিত নয়। তবে খাওয়ার মাধ্যমে হোক কিংবা অন্য কোনো উপায়ে, উহানের বন্যপ্রাণী থেকেই মানুষের শরীরে করোনা ছড়িয়ে পড়েছে, এটা সন্দেহাতীতভাবেই প্রমাণিত।

wildlife chinaচীনের উহানে একটি বন্যপ্রাণীর বাজার

চীনে যখন করোনার প্রাদুর্ভাব তুঙ্গে তখন দেশটিতে বন্যপ্রাণীর বেচাকেনা ও ভক্ষণ নিষিদ্ধ করার জন্য আন্দোলন করেছে সাধারণ মানুষ। বিশেষজ্ঞরাও তাদের সঙ্গে একমত হয়ে সরকারকে এ বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন। অবশেষে দেরি করে হলেও বন্যপ্রাণী বেচাকেনা, ভক্ষণসহ সব ধরনের বাণিজ্যিক ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে উহান কর্তৃপক্ষ। খবর সিবিসি নিউজের।

নির্দেশনায় বন্যপ্রাণীর খামারগুলো দ্রুত সরিয়ে ফেলতে বলা হয়েছে। যারা খামারি আছেন, তাদেরকে সরকারের পক্ষ থেকে প্রণোদনা দেওয়ারও ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া উপযুক্ত কারণ ব্যতিরেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে বন্যপ্রাণী শিকার।

update 6aprilউহানের বন্যপ্রাণী থেকেই মানুষের শরীরে করোনা ছড়িয়েছে, এটা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত

যে বন্যপ্রাণীর বাজার থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়েছিল, সেটা অবশ্য প্রাদুর্ভাবের শুরুতেই গত জানুয়ারিতে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সেখানে প্রায় ৩০ প্রজাতির বন্যপ্রাণী বেচাকেনা হতো। খাওয়ার জন্যও অনেকে এসব প্রাণী কিনে নিতেন। বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ নিয়ে কাজ করা সংগঠনগুলো অনেক আগে থেকেই চীনকে এমন বাণিজ্য নিষিদ্ধ করার আহ্বান জানিয়ে এসেছিল। কিন্তু তারা এসব আহ্বানে কর্ণপাত করেনি এতদিন।