advertisement
আপনি দেখছেন

মরণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক এখনো আবিষ্কার হয়নি। বিশ্বব্যাপী এ বিষয়ে শতাধিক গবেষণা চলছে। গবেষকরা প্রতিষেধক আবিষ্কার করার জন্য দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। প্রস্তুতকৃত অনেক নমুনাই মানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ হচ্ছে। এদের মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে আছে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির একটি গবেষণা। তাদের তৈরি প্রতিষেধক প্রথম দফায় মানবদেহে দেয়ার পর এবার দ্বিতীয় দফায় দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

vaccine symbolic picture 01প্রতীকী ছবি

শুক্রবার অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির গবেষণা দল থেকে জানানো হয়, তাদের উদ্ভাবিত ভ্যাকসিনটি প্রথম দফায় মানবদেহে দেয়া হয়েছে। এখন দ্বিতীয় দফায় দেয়া শুরু হবে। কাজ খুব সুন্দরভাবে এগোচ্ছে।

জানা যায়, এই ভ্যাকসিনটি পরীক্ষামূলকভাবে ১০ হাজার ২৬০ জনের ওপর পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হবে। ব্রিটেনের বিভিন্ন স্থান থেকে বিভিন্ন বয়সের মানুষকে এর জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে।

vaccine symbolic picture 04প্রতীকী ছবি

গবেষণা দলের প্রধান এন্ড্রিউ পোলার্ড বলেন, মানবদেহের ওপর ভ্যাকসিনটির পরীক্ষামূলক প্রয়োগ খুব ভালোভাবে চলছে। এখন পর্যন্ত কোনো খারাপ সংবাদ আমাদের কানে আসেনি। আমরা দেখছি, কীভাবে ভ্যাকসিনটি মানবদেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে। এর প্রতিক্রিয়া কী এবং জনসাধারণের জন্য এটি নিরাপদ কি না। তবে এখনো নিশ্চিত বলা যাচ্ছে না এটি সর্বসাধারণের ব্যবহারের উপযুক্ত হয়েছি কি হয়নি।

তিনি বলেন, এখনো নিশ্চিত করে বলতে পারছি না এই ভ্যাকসিন মানবদেহে সম্পূর্ণ কার্যকর হয়ে যাবে। গবেষণার সব ধাপ পার হলে তা পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

বিবিসি বলছে, প্রথম ধাপে অক্সফোর্ডের গবেষকরা ১৬০ জন মানুষের ওপর ভ্যাকসিন প্রয়োগ করেছেন। তাদের সবার বয়স ১৮ থেকে ৫৫ এর মধ্যে। দ্বিতীয় ধাপে যাদের দেয়া হবে তাদের বয়স হবে ৫ থেকে ১২ বছর। তৃতীয় ধাপে অধিক সংখ্যক মানুষের ওপর প্রয়োগ করা হবে- যাদের সবার বয়স ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে।