advertisement
আপনি দেখছেন

জাতিসংঘে নিযুক্ত তুরস্কের দূত ফেরিদুন সিনিরলিওগলু বলছেন, মধ্যপ্রাচ্যে কর্তৃত্ব স্থাপন করতে চাইছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। সে লক্ষ্যে পৌঁছাতে তারা যুদ্ধাপরাধের পাশাপাশি দুর্গত এলাকায় দুর্ভিক্ষের সৃষ্টি করছে। এসব কর্মকাণ্ডকে আমিরাত নিজেদের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ এবং সংস্থাটির মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের উদ্দেশ্যে লেখা এক চিঠিতে এসব কথা বলেন সিনিরলিওগলু।

turkey ammbasador to un feridun sinirliogluজাতিসংঘে নিযুক্ত তুরস্কের দূত ফেরিদুন সিনিরলিওগলু

চিঠিতে তিনি বলেন, আমিরাতের মদদে পরিচালিত বিভিন্ন বিমান হামলার মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন অঞ্চলে যুদ্ধাপরাধ, বেসামরিক নাগরিকদের গণহত্যা এবং তাদের বাড়িঘর উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ধ্বংস করা হচ্ছে। তারা এসব কর্মকাণ্ড করছে মধ্যপ্রাচ্যে কর্তৃত্ব স্থাপনের এক উচ্চাভিলাষী লক্ষ্য থেকে। তারা সফল হবে না, কিন্তু যেসব অঞ্চল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সেসব অঞ্চলে চরম মানবিক বিপর্যয় দেখা দেবে।

এ বিষয়ে নিরাপত্তা পরিষদকে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার আর্জি জানিয়ে তিনি বলেন, আমিরাতকে মনে রাখতে হবে, মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকা মহাদেশের উত্তরাঞ্চলে তাদের নেয়া পদক্ষেপ আন্তর্জাতিক আইনের পরিপন্থী।

war torn yemenযুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেন

ইয়েমেনে আমিরাতের বিভিন্ন কার্যক্রমের বর্ণনায় সিনিরলিওগলু বলেন, দেশটিতে চলমান সহিংসতায় হাজার হাজার বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। আমিরাত ও সৌদি আরবের মদদেই ইয়েমেনে সব সংঘাত পরিচালিত হচ্ছে। তাদের এমন কর্মকাণ্ডের কারণেই বিশ্বের সবচেয়ে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় নেমে এসেছে দেশটিতে। খাদ্য সঙ্কটে এখন দিন কাটাচ্ছে ইয়েমেনের অধিকাংশ মানুষ। এই দুর্ভিক্ষকে হাতিয়ার বানিয়েই তারা ওই অঞ্চলে কর্তৃত্ব স্থাপনের আশা করছে।

লিবিয়াতেও আমিরাত একই পন্থা অবলম্বন করেছে। বেসামরিক নাগরিকদের বোমা মেরে হত্যা, জঙ্গিদের মদদ পর্যন্ত দিয়ে যাচ্ছে তারা। তাদের এসব অনৈতিক কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এ বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়ে দায়িত্ব পালন করবে বলেও আশা করেন তুর্কি দূত।

sheikh mujib 2020