advertisement
আপনি দেখছেন

ফিলিস্তিনের সঙ্গে সরাসরি সংঘাতে জাড়ানো ইসরায়েলে এবার প্রতিবেশী আরেক দেশ লেবানন থেকে অন্তত ৩টি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়েছে। দেশটির উত্তরাঞ্চল লক্ষ্য করে ছোড়া এসব দূরাঅস্ত্র ভূমধ্যসাগরে গিয়ে পড়েছে বলে দাবি করা হয় আজ শুক্রবার।

lebanese missile attack on israel

ইসরায়েলের সেনাবাহিনীর বরাত দিয়ে টাইমস অব ইসরায়েল জানায়, হিজবুল্লাহর এসব ক্ষেপণাস্ত্র তেল আবিরের ভূখণ্ডে আঘাত না হানায় হতাহত বা ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে জানা গেছে। 

এই হামলাকে চলমান তেল আবিব-গাজা সংঘাতে ‘নতুন অধ্যায় সূচনার ইঙ্গিত’ হিসেবে বর্ণনা করেছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো। এ ধরনের হামলা লেবাননের প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহ করেছে বলেই মনে করা হচ্ছে। এটি সংঘাতে সংগঠনটির জড়িয়ে পড়ার ইঙ্গিত দিচ্ছে।

hezbollahs missiles

তবে ইরানপন্থী শিয়া মুসলিমদের সংগঠন হিজবুল্লাহর পক্ষ থেকে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার বিষয়ে কিছুই জানানো হয়নি এখন পর্যন্ত। যদিও তাদের বিশেষ ঘনিষ্ঠতা রয়েছে গাজার প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস ও ইসলামি জিহাদের সঙ্গে।

এর আগে ইসরায়েলের সঙ্গে ২০০০ ও ২০০৬ সালে দুই দফা বড় ধরনের যুদ্ধে জাড়িয়েছিল হিজবুল্লাহ। এর প্রথমটিতে বড় ধরনের খেসারত এবং দ্বিতীয়টিতে পরাজিত হয় তেল আবিব।

palestinian rocket rain 4

এদিকে, ইসরায়েলে লেবানিজ হামলার আগমুহূর্তে ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ কমান্ডারদের সঙ্গে বৈঠক হয় ইরাকের আন-নুজাবা আন্দোলনের। এতে সামরিকসহ সব ধরনের সহায়তার প্রতিশ্রুতি দেন সংগঠনটির মহাসচিব শেখ আকরাম আল-কাবি।

এ সময় ইসরায়েলকে সতর্ক করে আন-নুজাবা প্রধান বলেন, তাদের হাতে যেসব ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে, তা দখলদার তেল আবিবের গভীরে আঘাত হানতে সক্ষম। বিষয়টি ইহুদীবাদীদের মনে রাখতে হবে।

অন্যদিকে, ইসরায়েলি বিমান হামলায় এখন পর্যন্ত ২৮ শিশুসহ ১১৩ ফিলিস্তিনি নিহত এবং আরো ৫৮০ জন আহত হয়েছেন। এর জবাবে গত সোমবার থেকে আজ অবদি ১৮০০ রকেট ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে হামাস। এতে কমপক্ষে ৭ ইসরায়েলি নিহত এবং বেশ কয়েক ডজন আহত হয়। খবর পার্সটুডের।