advertisement
আপনি পড়ছেন

করোনাসহ নানা কারণে লেবাননের আর্থিক অবস্থা এখন খুবই সঙ্গীন। রাষ্ট্র পরিচালনা করার মতো যথেষ্ট অর্থ সঞ্চিত নেই দেশটির সরকারের কাছে। ফলে সাধারণ মানুষের সঞ্চিত আমানতের ওপর ব্যারিয়ার সৃষ্টি করা হয়েছে। কিন্তু নিরুপায় হয়ে প্রবাসী এক লেবানিজ যে কাণ্ড ঘটিয়েছেন তাতে পুরো দেশজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। আরব নিউজের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

abdullah al saeiআবদুল্লাহ আল-সাই

জানা গেছে, আবদুল্লাহ আল-সাই দীর্ঘ প্রবাস জীবন কাটিয়ে সম্প্রতি দেশে ফেরেন। প্রবাসে থাকাকালে তিনি দেশে টাকা পাঠাতেন। কিছুদিন আগে সেই টাকা তুলতে গেলে দেশের অর্থনৈতিক ও ব্যাংকিং সঙ্কটের অজুহাতে তার সে টাকা আটকে দেওয়া হয়। বেশ কয়েকবার তিনি এ ধরনের ভোগান্তিতে পড়েন।

অবশেষে আবদুল্লাহ আল-সাই গত মঙ্গলবার পূর্ব লেবাননের বেকা উপত্যকায় ব্যাংক অব বৈরুতে ঢুকে কয়েকজন কর্মকর্তা ও গ্রাহককে জিম্মি করেন। এ সময় তার হাতে বন্দুক, গ্রেনেড ও বিস্ফোরকের একটি বোতল ছিল। নিজের টাকা তুলতে দেওয়ার দাবিতে তিনি কয়েক ঘণ্টা এ কর্মকাণ্ড চালিয়ে যান। তিনি দাবি করেন, তার দাবি মানা না হলে শাখাটি উড়িয়ে দেবেন। এক পর্যায়ে ব্যাংক সমঝোতায় আসে এবং তার গচ্ছিত ৫০ হাজার ডলার তার স্ত্রীর কাছে প্রদান করা হয়। এ ঘটনায় অবশ্য কেউ হতাহত হননি।

bank of beirutব্যাংক অব বৈরুতের একটি শাখা

বিষয়টি এখানেই মিটে যায়নি। পরদিন আবার তার সেই টাকা জব্দের নির্দেশ দেওয়া হয় অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয় থেকে। এর প্রতিবাদে আবারো অনশনে বসে আবদুল্লাহ আল-সাই। তবে তুলে নেওয়া সেই টাকা এখনও জব্দ করা সম্ভব হয়নি। কারণ আবদুল্লাহর স্ত্রীকে পাওয়া যায়নি। অ-লেবানিজ ওই নারীর বিরুদ্ধে এরই মধ্যে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

এসব ঘটনা লেবাননজুড়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। অনেকেই আবদুল্লাহ আল-সাইকে সমর্থন করে তার কাজের জন্য তাকে ‘জাতীয় নায়ক’ হিসাবে বর্ণনা করেছেন।

চার্বেল হেজ নামের একজন এক টুইট করেন, নিজেদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব বিশ্বস্ততার সাথে পালনে ব্যর্থ হওয়ায় ব্যাংক, তাদের পরিচালক এবং শেয়ারহোল্ডারদের বিরুদ্ধে মামলা করার পরিবর্তে, লেবাননের বিচারব্যবস্থা অর্থ উত্তোলনের জন্য একজন আমানতকারীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে। নির্লজ্জ।

দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে আর্থিক সংকটে রয়েছে লেবানন। ফলে ব্যাংকগুলো গ্রাহকদের অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেসে বাধা দেয়। বিষয়টি নিয়ে প্রায়শই সেখানে বিবাদের সূত্রপাত হয়।