advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 12 মিনিট আগে

বাংলাদেশের প্রায় ৯৫ ভাগ মানুষ গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ভোগেন। এর মূল কারণ খাদ্যাভ্যাস। এছাড়া নিত্য প্রয়োজনীয় খাবার ও ফলমূলে বিভিন্ন কীটনাশক ও ফরমালিন প্রয়োগও এর জন্য অনেকাংশে দায়ী। এসব কীটনাশক ও ফরমালিন আমাদের পেটে গিয়ে নানারকম জটিল সমস্যা তৈরির পাশাপাশি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যাও তৈরি করে।

date for gastric

ডাক্তারের পথ্য বা খাবারের বিভিন্ন বাছ-বিচার করেও এই গ্যাস্ট্রিক থেকে রেহাই পাওয়া যায় না। অথচ খুব পরিচিত একটি ফলই আপনাকে এই এই সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। সেটি হলো খেজুর।

খেজুরে আছে ফ্রুকটোজ এবং গ্লাইসেমিক। যা রক্তে শর্করার পরিমাণ বাড়ায়। ফলে আপনাকে খাবারের সাথে বাড়তি চিনি খেতে হবে না। খেজুর আপনার শরীরে চিনির বিকল্প যোগান দিবে।

প্রতি ৩০ গ্রাম খেজুরে ৯০ ক্যালোরি, এক গ্রাম প্রোটিন, ১৩ মি.লি. গ্রাম ক্যালসিয়াম ও ২.৮ গ্রাম ফাইবার আছে। ফলে খেজুর খাওয়ার সাথে সাথেই আপনার শরীরের ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে এবং আপনি চনমনে বোধ করবেন। এছাড়া খেজুরে থাকা ভিটামিন বি-সিক্স আপনার মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করবে।

ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী প্রতিদিন কমপক্ষে তিনটি করে খেজুর খেলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর হবে। কার্যকরী ফল পেতে এই অভ্যাস আপনাকে কমপক্ষে এক সপ্তাহ ধরে চালিয়ে যেতে হবে।

এছাড়া খেজুর খাবারের রুচি বাড়ানোর পাশাপাশি আপনার হজমক্ষমতাও বাড়াবে। ফলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যাও কমে যাবে অনেকখানি।

sheikh mujib 2020