advertisement
আপনি দেখছেন

বাজারে এখন পেয়ারা যেন উপচে পড়ছে। দামও হাতের নাগালে। এই পেয়ারার গুণের শেষ নেই। বহু ধরনের ভিটামিন, ফাইবার থাকার কারণে পেটের নানা সমস্যা সমাধানে দারুণ উপকারী। নিয়মিত পেয়ারা খেলে হৃদযন্ত্রও ভালো থাকে। এগুলোর পাশাপাশি সাম্প্রতিক এক গবেষণায় উঠে এল পেয়ারার বড় আরেকটি গুণের কথা। তাতে বলা হয়েছে, পেয়ারা ক্যান্সার আক্রান্ত কোষের বৃদ্ধি আটকে দিতে পারে।

goava পেয়ারা বাংলাদেশে সহজলভ্য

সম্প্রতি আমেরিকার ‘ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ’-এর একটি গবেষণাপত্রে ক্যানসার চিকিৎসায় পেয়ারার ভূমিকা সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, পেয়ারার মধ্যে এমন কিছু উপাদান রয়েছে, যা ক্যান্সার আক্রান্ত কোষের মধ্যে ঢুকে বৃদ্ধি আটকে দিতে পারে।

গবেষণায় ব্যবহৃত কঠিন কঠিন আলোচনা না করেও বলা যায়, পেয়ারার মধ্যে যে বিপুল পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে, সেটিই ক্যান্সার প্রতিহত করতে কাজে লাগে। ইতিমধ্যেই গবেষণাগারে স্তন্যপায়ী প্রাণীদের ওপর পরীক্ষা করে এর সফলতা দেখা গেছে।

goava treeপেয়ারা গাছ

দেখা গেছে, ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি আটকাতে পারছে পেয়ারার ত্বকের রস এবং পেয়ারা পাতার রস। গবেষণায় এ-ও দেখা গেছে, এই কাজের জন্য ব্যবহৃত অন্যান্য ওষুধের চেয়েও প্রায় চারগুণ বেশি ক্ষমতা রয়েছে পেয়ারায়।

তাহলে এখন থেকে সবকিছু ফেলে দিয়ে ক্যান্সারের চিকিৎসায় কি পেয়ারা বা তার রসের ব্যবহার হবে? এ সম্পর্কে এখনই স্পষ্ট কিছু জানাননি বিজ্ঞানীরা। তবে একেবারে নিরাশও করেননি তারা। বলেছেন, আরো কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ইতিবাচক ফল পাওয়া গেলে ক্যান্সারের চিকিৎসায় পেয়ারার ব্যবহার হতে পারে।