আপনি পড়ছেন

মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএর সাবেক প্রধান ডেভিড পেট্রাউস হুমকি দিয়ে বলেছেন, যদি রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনে পারমাণবিক বোমা হামলা চালান, তাহলে সেখানে অবস্থান করা রুশ সেনা এবং তাঁদের সব সামরিক সরঞ্জাম ধ্বংস করে দেওয়া হবে। কৃষ্ণসাগরে রাশিয়ার নৌবহরও ডুবিয়ে দেওয়া হবে। আর এই কাজটি করবে যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউক্রেনের মিত্ররা। মার্কিন সংবাদমাধ্যম এবিসি নিউজের সঙ্গে আলাপচারিতায় গত রোববার এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি। খবর গার্ডিয়ান।

david petraeus interviewসাক্ষাৎকার দিচ্ছেন ডেভিড পেট্রাউস, ফাইল ছবি

ইউক্রেনে হামলার কিছুদিনের মধ্যেই পরমাণু হামলার হুমকি দিয়ে নিজ দেশের পরমাণু কর্মকর্তাদের সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে বলেছিলেন পুতিন। সম্প্রতি ইউক্রেনের চারটি অঞ্চল নিজেদের সাথে সংযুক্তির পর সে হুমকি আরও জোরালো হয়েছে। পুতিনসহ দেশটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পরমাণু অস্ত্র ব্যবহারের হুমকি দিয়ে বলেছেন, নতুন সংযুক্ত অঞ্চলসহ পুরো রাশিয়ার ভৌগোলিক অখণ্ডতা রক্ষায় মস্কো নিজেদের হাতে থাকা সব ধরনের অস্ত্র ব্যবহার করবে।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে সিআইএর সাবেক প্রধান পাল্টা এ হুঁশিয়ারি দিলেন। তবে বিষয়টি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান জাতীয় নিরাপত্তাবিষয়ক উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভানের সঙ্গে তার কোনো কথা হয়নি বলে উল্লেখ করেছেন পেট্রাউস।

nato armyন্যাটো সেনা

সাক্ষাৎকারে তিনি আরও বলেন, মার্কিন নেতৃত্বে ন্যাটো রাশিয়ার পারমাণবিক হামলার জবাব দেবে। ইউক্রেনে যুদ্ধক্ষেত্রে দৃশ্যমান সকল রুশ সেনা এবং রুশ সামরিক শক্তিকে ধ্বংস করে দেওয়া হবে। ক্রিমিয়ায় অবস্থান করা রুশ বাহিনী এবং কৃষ্ণসাগরে থাকা তাদের প্রত্যেকটি জাহাজেরও একই পরিণতি হবে।

ইউক্রেন ন্যাটোর সদস্য না হওয়া সত্ত্বেও সংস্থাটি এ যুদ্ধে জড়াবে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে পেট্রাউস বলেন, ইউক্রেন ন্যাটোর সদস্য না হওয়ায় সেখানে রাশিয়ার পরমাণু হামলা হলেও ন্যাটোর পঞ্চম অনুচ্ছেদ বাস্তবায়ন করার মতো কোনো পরিস্থিতি তৈরি হবে না। তারপরও যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো রাশিয়ার এ ধরনের হামলার জবাব দেবে।

অবশ্য মার্কিন সাবেক গোয়েন্দাপ্রধান বলেন, ইউক্রেনে যদি পরমাণু হামলা হয়, তাহলে নিশ্চিতভাবে ন্যাটোর সদস্য দেশগুলোতে তেজস্ক্রিয়তা ছড়িয়ে পড়বে। এটিকে ন্যাটোর সদস্য দেশগুলোর ওপর হামলা বলে ধরে নেওয়া যেতে পারে।

ইউক্রেনে হামলা নিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে কিছুটা কঠিন পরিস্থিতির মুখে পড়েছে রাশিয়া। গত মাসে বেশকিছু জায়গা থেকে তাদের পিছু হটতে হয়েছে। এমনকি যে চারটি অঞ্চল তারা নিজেদের সাথে সংযুক্ত করেছেন, সেখানকার একটি শহর দখল করে নিয়েছে ইউক্রেনের সেনারা। সব মিলিয়ে পুতিন কিছুটা চাপের মুখেই আছেন।

পেট্রাউস বলেন, পুতিন যে অবস্থায় আছেন, তাতে কোনো কিছুই পরিস্থিতির বদল আনতে পারবে না। এমনকি পরমাণু অস্ত্র ব্যবহারেও তার তেমন কোনো পরিবর্তন আসবে না। বরং সেক্ষেত্রে রাশিয়া ও পুতিনের অবস্থা আরও খারাপের দিকে যেতে পারে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর