আপনি পড়ছেন

মানুষের রক্তে অতিক্ষুদ্র প্লাস্টিককণা মিলেছে আগেই। এবার মায়ের বুকের দুধেও শনাক্ত হলো এই ক্ষতিকর উপাদান। প্রথমবারের মতো ইতালির বিজ্ঞানীরা মায়ের বুকের দুধে মাইক্রোপ্লাস্টিক (অতি ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণা) শনাক্ত করেছেন। এতে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে বিশেষজ্ঞদের মধ্যে। তাদের আশঙ্কা, এতে নবজাতকের স্বাস্থ্যে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে। তবে গবেষকরা এও বলছেন, এখন পর্যন্ত যতটুকু মাত্রায় মাইক্রোপ্লাস্টিক মিলছে, সেটুকুর ঝুঁকির তুলনায় মায়ের দুধের উপকারিতা শিশুর জন্য অনেক বেশি। খবর গার্ডিয়ান।

mother child plasticমায়ের দুধই নবজাতকের জন্য সবচেয়ে উপকারী

মাইক্রোপ্লাস্টিক হচ্ছে এক ধরনের প্লাস্টিকের অতি ক্ষুদ্র কণা, যার দৈর্ঘ্য ৫ মিলিমিটারের চেয়েও কম। মায়ের বুকের দুধে যেসব মাইক্রোপ্লাস্টিকের অস্তিত্ব মিলেছে, তার মধ্যে পলিথিন, পিভিসি ও পলিপ্রোপাইলিন রয়েছে।

সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বিজ্ঞান সাময়িকী পলিমারসে সম্প্রতি গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছে। গবেষণার অংশ হিসেবে বিজ্ঞানীরা ইতালির ৩৪ জন মায়ের বুকের দুধের নমুনা সংগ্রহ করেন, যারা সুস্বাস্থ্যের অধিকারী। সন্তান জন্মদানের এক সপ্তাহ পরই এসব মায়েদের বুকের দুধের নমুনা নেওয়া হয়।

পরে গবেষণায় দেখা যায়, তিন-চতুর্থাংশ নমুনার মধ্যেই অতিক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণার অস্তিত্ব রয়েছে।

গবেষকেরা বলছেন, গবেষণায় অংশ নেওয়া মায়েদের খাবারের ধরন, প্লাস্টিকের বোতলে পানীয় পান, প্লাস্টিকের মোড়কজাত প্রসাধনীর ব্যবহারের বিষয়গুলো পর্যবেক্ষণ করা হয়।

বিজ্ঞানীদের আশংকা, পুরো দুনিয়ার মানুষকেই অনিবার্যভাবে পরিবেশজুড়ে বিদ্যমান প্লাস্টিক কণার সংস্পর্শে আসতে হচ্ছে। কোনো না কোনোভাবেই খাবারের মাধ্যমে তা চলে যাচ্ছে দেহে। আর এতেই মায়ের দুধেও ঢুকে গেছে অতিক্ষুদ্র প্লাস্টিক উপাদান।

গবেষক দলের অন্যতম ইতালির পলিটেকনিকা দেল মারচে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ভ্যালেন্তিনা নোতারস্তেফানো বলেন, বুকের দুধে প্লাস্টিক কণার উপস্থিতি  অবশ্যেই নবজাতকদের জন্য উদ্বেগের। তবে অতি সামান্য প্লাস্টিক কণার অপকারিতার চেয়ে নবজাতককে স্তন্যপান করানোর উপকারিতা অনেক বেশি।

তিনি বলেন, গবেষণার মানে এ নয় যে শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানো বন্ধ করে দিতে হবে। তারচেয়ে দূষণ কমাতে পদক্ষেপ ও জনসচেতনতা জরুরি। বিশেষ করে গর্ভাবস্থায় ও স্তন্য পানের সময়ে কীভাবে প্লাস্টিকের সংস্পর্শ কমানো যায়, সেই চেষ্টাও গুরুত্বপূর্ণ। তাই গর্ভাবস্থায় নারীদের প্লাস্টিকজাত খাবার ও পানীয়, প্লাস্টিক মোড়কের প্রসাধনী ও টুথপেস্ট, এমনকি সিনথেটিক পোশাকও এড়িয়ে চলা উচিত।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর