আপনি পড়ছেন

ইরাকের রাজধানী বাগদাদে জোড়া বোমা হামলার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ২০০ জনের বেশি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো তিনশর মতো লোক। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো বলছে, হামলাটি ঘটিয়েছে কথিত ইসলামিক স্টেট (আইএস) সদস্যরা।

bombing in bagdad egypt

রোববার ভোর রাতে ও সকালে চালানো হামলা দুটির প্রথমটি ছিল আত্মঘাতী গাড়িবোমা হামলা। যা বাগদাদের কেন্দ্রীয় এলাকা কারাদা-র এক ব্যস্ত এলাকায় বিস্ফোরিত হয়। দ্বিতীয় বোমা হামলাটি চালানো হয় বাগদাদের উত্তরাঞ্চলে একটি শিয়া এলাকার আল শাব বাজারে।

জানা যায়, প্রথম বোমা হামলায় মোট ১১৫ জন নিহত এবং অন্তত ২০০ জন আহত হন। অন্য হামলায় অন্তত চার জন নিহত হন। এদিকে ইন্টারনেটে এক বিবৃতিতে কারাদায় চালানো হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএস। তারা বলছে, হামলাটি আত্মঘাতী।

দেশটির সাবেক সেনা কর্মকর্তা ও বাগদাদের নিরাপত্তা বিশ্লেষক জসিম আল-বাহাদলি রয়টার্সকে বলেন, 'আইএস জঙ্গিরা ফাল্লুজায় গোহারের ক্ষতিপূরণ হিসেবে আত্মঘাতী হামলা চালিয়েছে। সরকার ভেবেছিল শুধুমাত্র একটি এলাকা থেকে বোমা হামলা পরিচালিত হবে। কিন্তু সেটা ভুল 'স্লিপার সেল' সব জায়গায় ছড়িয়ে পরেছে।'

এক ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, বিস্ফোরণের ফলে অন্তত চারটি ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কিছুটা ধসেও পড়েছে। ভবনগুলোর মধ্যে একটি শপিংমলও রয়েছে। শপিংমলটিই মূলত হামলার লক্ষ্য ছিল বলে বিশ্লেষকরা ধারণা করছেন।

২০১৬ সালে এটিই ইরাকে সংঘটিত সবচেয়ে বড় রক্তক্ষয়ী হামলা। দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী আইএস-এর কাছ থেকে ফাল্লুজা শহর পুনর্দখলের এক সপ্তাহ পর হামলাটি চালানো হলো।

আপনি আরো পড়তে পারেন

সৌদিতে মার্কিন কনস্যুলেটের কাছে আত্মঘাতী হামলা

গুলশান হামলার পর ইতালিতে আতঙ্কে বাংলাদেশিরা

৭ জাপানি নাগরিকের মৃত্যুতে ‘ক্ষুব্ধ’ শিনজো আবে

ইউরোর কোয়ার্টার ফাইনালে ঢাকার জন্য শোক

নতুন নিষেধাজ্ঞা আসলে পরমাণু সমঝোতা ছুড়ে ফেলবে ইরান

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর