আপনি পড়ছেন

মধুমাসের এই সময় বাড়িতে আম, কাঁঠালের মত সুগন্ধি ফল থাকবে এমনটাই স্বাভাবিক। আর মধুমাসি ফলের সাথে মাছির উপদ্রব বাড়বেই। ছোট্ট এই প্রাণীটি ঘরে আসে পাকা ও পঁচে যাওয়া ফলের ঘ্রাণে আকৃষ্ট হয়ে। আর্দ্র ও স্যাঁতসেঁতে স্থানে এদের বৃদ্ধি হয়।

bees in fruit

মাছির উপদ্রব থেকে বাঁচতে কিছু সহজ উপায় বাতলে দেয়া হল। মেনে চলুন, আর ফল খাওয়ার সময় মাছি মুক্ত থাকুন।

অনেক কাজের কাজি অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার। আধা কাপ অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার হালকা গরম করে এর সাথে ১-২ ফোঁটা ডিসওয়াশিং লিকুইড মিশিয়ে একটি বয়ামে ঢেলে এতে কয়েক টুকরা পাকা ফল দিয়ে দিন। বয়ামের মুখে একটি চুঙ্গি লাগিয়ে স্কচ টেপ দিয়ে আটকে দিন। এবার বয়ামটি রান্নাঘরের যেখানে মাছির উপদ্রব বেশি সেখানে রাখুন। অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার ফারমেন্টেড লিকুইড, যার গন্ধ ফ্রুট ফ্লাই বা ফলের মাছি একেবারেই সহ্য করতে পারে না। পাকা ফলের আকর্ষণে মাছি গেলে তরলের মধ্যে পড়ে যায়। সেহান থেকে মাছি আর বের হতে পারে না।

দুধ, চিনি ও মরিচের গুঁড়ো দিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করে ১০ মিনিট জ্বাল দিন। মিশ্রণটি এবার ১টি ছড়ানো প্লেটে ঢেলে রেখে দিন। কিছুখণ পর দেখবেন মাছি মরে পড়ে আছে এতে। এছাড়া মাছি পুদিনা পাতার গন্ধ সহ্য করতে পারে না। তাই ঘরে পুদিনার গাছ থাকলে ফলের ঝুড়ির কাছে রাখুন। মাছি বসবে না।

কোন ফল পঁচে গেলে মাছির সমস্যা আরও বাড়ে। পঁচে যাওয়া ফল একটি পাত্রে নিয়ে পাত্রের মুখ স্বচ্ছ প্লাস্টিক দিয়ে বন্ধ করে দিন। এবার একটি টুথপিকের সাহায্যে প্লাস্টিকের উপরিভাগে মাছি ঢুকতে পারে এমন অনেকগুলো ছিদ্র করুন। ঘরের যেখানে মাছির উপদ্রব বেশি সেখানে পাত্রটি রেখে দিন। মাছি গন্ধে আকৃষ্ট হয়ে প্লাস্টিকের ছোট ছিদ্র দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করলেও আর বেরোতে পারবে না।

আপনি আরও পড়তে পারেন

ঘর পরিষ্কারের সামগ্রী কতোটুকু নিরাপদ

তেলাপোকা কি খাবার নষ্ট করে?

খাবার পরিবেশনে আনুন সঠিক থালাবাসন

ধোয়া ছাড়াই দূর করুন কাপড়ের দুর্গন্ধ

ঈদের বাজার হোক স্বাস্থ্যকর

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর