advertisement
আপনি দেখছেন

দেশের অতিরিক্ত ভিড় হয়ে যাওয়া জেলখানায় করোনাভাইরাস মহামারি যাতে ছড়িয়ে না পড়ে, তা নিশ্চিত করতে প্রেসিডেনশিয়াল ক্ষমা ঘোষণা করেছে জিম্বাবুয়ে। এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে অন্তত ৩০০০ হাজতিকে মুক্তি দেওয়া হচ্ছে।

prisoners to get amnesty due to covid 19 in zimbabwe

এর মধ্যেই চিকুরুবি নামক এলাকার জেল থেকে প্রায় ৪০০ হাজতিকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। এরপর রাজধানী হারারে এবং অন্যান্য অঞ্চলের জেল থেকেও হাজতিদের মুক্তি দেওয়া হবে।

জিম্বাবুয়ের জেলে মোট ১৭০০০ হাজতিকে জায়গা দেওয়া সম্ভব। কিন্তু দেশটিতে এখন মোট ২২০০০ হাজতি আছেন। প্রেসিডেন্ট এমারসন মানাঙ্গগওয়ার ক্ষমা ঘোষণার পর এই পরিস্থিতিত কিছুটা ভালো হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

কেবলমাত্র সেই হাজতিরা এই সুবিধা পাচ্ছেন যারা অহিংস অপরাধের কারণে বন্দি হয়েছিলেন। কিন্তু যারা হত্যা, বিশ্বাসঘাতকতা, মানবপাচার অথবা যৌন অপরাধমূলক কাজের জন্য বন্দি হয়েছেন, তারা এই সুবিধা পাবেন না।

আপাতত যে সব নারী হাজতিরা অহিংস অপরাধের জন্য বন্দি হয়েছেন এবং তাদের শাস্তির মেয়াদের তিন ভাগের এক ভাগ ভোগ করেছেন তারা এবং অহিংস অপরাধে বন্দি হওয়া প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা ছাড়া পাচ্ছেন।

প্রেসিডেন্ট মানাঙ্গগওয়া মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত বহু আসামীর শাস্তি কমিয়ে যাবজ্জীবন করেছেন। জিম্বাবুয়েতে মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকলেও দীর্ঘদিন তারা কোনো আসামীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেনি।

হারারের একজন কারা কর্মকর্তা বলেন, এই ক্ষমার ফলে হাজতের অনেক ব্যয় কমবে এবং হাজতে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা কমবে। এখন পর্যন্ত হারারের জেলখানায় ১৭৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন এবং একজনের মৃত্যু হয়েছে।

এপ্রিলের ১৭ তারিখ পর্যন্ত প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে, জিম্বাবুয়েতে সব মিলিয়ে ৩৭,৫৩৪ ব্যক্তি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১৫৫১ জন মারা গেছেন।