advertisement
আপনি দেখছেন

বুড়িগঙ্গা নদীতে থাকা ঢাকা ওয়াসার সকল সুয়ারেজ লাইন সরিয়ে ফেলতে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। রোববার ওয়াসার করা আবেদনের প্রেক্ষিতে বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

high court 2

আগামী ছয় মাসের মধ্যে সরকারি সেবা সংস্থাটিকে সুয়ারেজ লাইনগুলো সরাতে বলা হয়েছে। একইসাথে আদেশ বাস্তবায়নের বিষয়ে এক মাসের মধ্যে অগ্রগতি প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। আদেশের বিষয়টি জানান রিটকারী আইনজীবী মনজিল মোরসেদ।

এদিকে বুড়িগঙ্গায় ওয়াসার কোনো সুয়ারেজ লাইন পতিত হয়নি মর্মে ১৮ জুন যে অসত্য তথ্য সম্বলিত এফিডেভিট দেয়া হয়েছিল তার জন্য হাইকোর্টে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি)। আদালত বলছে, সুয়ারেজ লাইন সরানোর ওপর নির্ভর করে এবিষয়ে আদেশ দেয়া হবে।

এছাড়া পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়া বুড়িগঙ্গার দুই তীরে গড়ে ওঠা শিল্প প্রতিষ্ঠান এবং যেসব শিল্প প্রতিষ্ঠান থেকে বর্জ্য বুড়িগঙ্গায় পড়ছে সেইসব প্রতিষ্ঠান আগামী একমাসের মধ্যে বন্ধ করতে পরিবেশ অধিদপ্তরকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এদিন পরিবেশ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে একটি প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, বুড়িগঙ্গা নদীর দক্ষিণ তীরে ৫২টি ওয়াশিং ফ্যাক্টরি পরিবেশগত ছাড়পত্র ও কোনো ধরনের ই-ফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট ছাড়াই পরিচালিত হচ্ছে। এগুলো বুড়িগঙ্গার পানি ও পরিবেশকে দূষিত করছে। এছাড়া ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার ভেতরে বুড়িগঙ্গা নদীর উত্তর তীরেও কিছু শিল্প প্রতিষ্ঠান পরিবেশগত ছাড়পত্র ও ই-ফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট ছাড়াই চলছে। এসব শিল্প প্রতিষ্ঠানও বুড়িগঙ্গার পানিকে দূষিত করছে।

যেসব প্রতিষ্ঠান পরিবেশগত ছাড়পত্র ও ই-ফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট ছাড়াই চলছে এবং বুড়িগঙ্গার পানি ও পরিবেশকে দূষিত করছে সেগুলোকে এক মাসের মধ্যে বন্ধ করতে পরিবেশ অধিদপ্তরকে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। একই সাথে অধিদপ্তরকে আগামী ৮ জানুয়ারির মধ্যে এ ব্যাপারে একটি অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে।

এর আগে গত ১৭ নভেম্বর হাইকোর্ট বুড়িগঙ্গা নদীর চারপাশে গড়ে ওঠা ২৭ প্রতিষ্ঠানের পরিবেশগত ছাড়পত্র না থাকায় তা বন্ধের নির্দেশ দেয়। ১৫ দিনের মধ্যে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে পরিবেশ অধিদপ্তরকে বলা হয়। এছাড়া বুড়িগঙ্গা দূষণ নিয়ে ঢাকা ওয়াসার পক্ষ থেকে হলফনামা আকারে আদালতে মিথ্যা তথ্য দেয়ায় ওয়াসার এমডির বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না তা জানতে চেয়ে শোকজ নোটিশ দেয় আদালত।

জানা যায়, ঢাকা ওয়াসার অধিক্ষেত্রে প্রায় ৯৩০ কিলোমিটার পয়োলাইন রয়েছে। উক্ত পয়োলাইনের কোনো মুখ বা আউটলেট বুড়িগঙ্গা কিংবা অন্য কোনো প্রাকৃতিক জলাধারে পতিত হয়নি। বরং ঢাকা ওয়াসার নিয়ন্ত্রণাধীন পয়োলাইনের মুখ বা আউটলেট পাগলা পয়ঃশোধনাগারে পতিত হয়েছে। পাগলা পয়ঃশোধনাগারে পতিত পয়োবর্জ্যসমূহ পরিশোধন করা হয়।

প্রসঙ্গত, হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের করা এক রিটের প্রেক্ষিতে ২০১১ সালে হাইকোর্ট এক রায়ে বুড়িগঙ্গার পানি দূষণরোধে কয়েকদফা নির্দেশনা দেয়। কিন্তু ওই নির্দেশনা বাস্তবায়িত না হওয়ায় আবারও আদালতে আবেদন করে রিটকারী ওই সংগঠন। ইউএনবি।