আপনি পড়ছেন

প্রাণঘাতী করোনায় সংক্রমণ ও মৃত্যুর সুনামি বয়ে যাচ্ছে প্রতিবেশী ভারতে। কোনো অবস্থাতেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারছে না দেশটি। ফলে এ নিয়ে বেশ চাপের মুখে আছে নরেন্দ্র মোদির সরকার।

corona in control

এমতাবস্থায় ভাইরাসটির চিকিৎসায় আরো একটি দেশীয় প্রতিষেধকের জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে নয়াদিল্লি। ছাড়পত্র পাওয়া ‘২–ডিঅক্সি–ডি–গ্লুকোজ’ (২–ডিজি) হচ্ছে পাউডার, যা পানিতে গুলে খেতে হয়।

প্রতিষেধকটি যৌথভাবে তৈরি করেছে ভারতের ‘ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন’ (ডিআরডিও) ও হায়দরাবাদের ওষুধ কোম্পানি ড. রেড্ডিজ।

দেশটির গণমাধ্যমগুলো জানায়, ২–ডিজি- এর ছাড়পত্র দিয়েছে ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়া (ডিসিজিআই)। এর ফলে বিশ্বে করোনার প্রতিষেধক হিসেবে প্রথম কোনো ‘ওরাল মেডিসিন’ অনুমোদন পেল।

এখন পর্যন্ত করোনার প্রতিষেধক হিসেবে অনুমোদন পাওয়া ওষুধের বেশিরভাগই ইনজেকশন। এ ছাড়া পরীক্ষা চলছে নাকের ড্রপ হিসেবে ব্যবহারের একটি প্রতিষেধকের।

2 deoxy d glucose 2 dg

ভারতের সরকারি বার্তা সংস্থা পিটিআই জানায়, ২–ডিজি- এর দ্বিতীয় পর্যায়ের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল হয়েছে গত বছরের মে-অক্টোবর মাসে। তখন ১১০ জন রোগীর শরীরে ওষুধটি প্রয়োগ করা হয়।

তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষা চালানো হয় ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের মোট ১১টি হাসপাতালে। তাতে করোনা আক্রান্ত রোগীদের দ্রুত সুস্থ হওয়ার বিষয়টি প্রমাণিত হয়েছে।

বলা হচ্ছে, অক্সিজেন দেয়া রোগীদের শরীরেও ২–ডিজি প্রয়োগ করা হয় এবং এটি তাদের ক্ষেত্রেও কার্যকর হয়। ওষুধটি নেয়ার পর বেশিরভাগ রোগীর আরটি–পিসিআর পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছে।

প্রসঙ্গত, ভারতে করোনার ভয়াবহ তাণ্ডবকে আগ্নেয়গিরির সঙ্গে তুলনা করেছে জাতিসংঘ। দেশটিতে প্রতি সেকেন্ডে গড়ে ৪ জন করে রোগী শনাক্ত করা হচ্ছে, মিনিটে মারা যাচ্ছে ২ জন! গত ২৪ ঘণ্টায় প্রায় ৪ হাজার ২০০ জনের মৃত্যুর রেকর্ড হয়েছে দেশটিতে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর