advertisement
আপনি পড়ছেন

ভারতের উত্তরপ্রদেশের এক স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা বাড়িতে পড়ে না আসায় ছাত্রীদের সর্বসম্মুখে অর্ধনগ্ন করে শাস্তি দিয়েছেন, এমন অভিযোগ করেছেন তারই ছাত্রীরা।

India female student

আভিভাবকদের অভিযোগ, ছাত্রীদের প্রথমে স্কুলের মাঠে কান ধরে নি-ডাউন করতে বলা হয়। এরপর তাদেরকে পরনের স্কার্ট পরে মাঠে দৌড়াতে বলেন প্রধান শিক্ষিকা।

তবে স্কুলটির প্রধানশিক্ষিকা মীনা সিং এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, 'এ ধরণের কোন ঘটনাই ঘটেনি। ওরা প্রায় দুই মাস থেকে বাড়িতে পড়ালেখা করছিল না বলে সামান্য শাস্তি দেয়া হয়েছে।'

সোনভদ্র জেলা প্রশাসন চন্দ্রভূষণ সিং জানিয়েছেন, ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষিকাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করার জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে। খুব দ্রুতই তদন্তের ফলাফল পাওয়া যাবে। প্রতিবেদন হাতে পেলেই আমরা উপযুক্ত পদক্ষেপ নেয়া হবে।

অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রী জানায়, গত শুক্রবার সংস্কৃত শ্লোক বাড়ি থেকে শিখে আসতে বলা হয়েছিল। কিন্তু পরদির ১৫ জন শিক্ষার্থী না পড়ে আসায় তাদের স্কার্ট খুলে প্রথমে নি-ডাউন এবং তারপর মাঠে দৌড়াতে বলা হয়।

আরেকজন ছাত্রী বলেছে, 'আমাদের প্রথমে স্কার্ট ছাড়া স্কুলের মাঠে নি-ডাউন করে বসানো হয়। তার কিছুক্ষণ পর দৌড়াতে বলা হয়। এ সময় মাঠে অনেক ছেলে ছিল। দৌড়ের সময় আমাদের পায়ে প্রচণ্ড আঘাত করা হচ্ছিল।'

ছাত্রীরা আরও জানায়, এই শাস্তির পুরোটা মোবাইলে ভিডিও করে প্রধান শিক্ষিকা বলেন, পরবর্তীতে পড়া না শিখে আসলে ইন্টারনেটে এই ভিডিও ছড়িয়ে দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, ভারতের আইনে স্কুলের শিক্ষার্থীদের ওপর কোন ধরণের শারীরিক বা মানসিক শাস্তি তো দূরের বিষয়, অপমানজনক কোন কথা বলাও আইনত নিষিদ্ধ। কিন্তু তারপরও শিক্ষার্থীদের ওপর নির্যাতন করা হলে খুব কম ক্ষেত্রেই শিক্ষক বা শিক্ষিকাকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হয়েছে।