advertisement
আপনি দেখছেন

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে উত্তেজনা ছড়ানো নন্দীগ্রাম আসনে ভোট পুনর্গণনা নিয়ে উত্তাপ দেখা দিয়েছে। গত রোববার ফল ঘোষণার দিন থেকে গণনায় কারচুপির অভিযোগ করে আসছে তৃণমূল কংগ্রেস। তবে বিজেপি বলছে, কোথাও কোনো অনিয়ম হয়নি।

mamata vitor

এ বিতর্কে নতুন মাত্রা যোগ করলেন তৃণমূল নেত্রী ও বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকাল সোমবার তিনি দাবি করেন, ভোট পুনর্গণনার নির্দেশ দেয়া নিয়ে প্রাণনাশের হুমকিতে রয়েছে নন্দীগ্রামের রিটার্নিং কর্মকর্তা।

এ সময় অজ্ঞাত এক ব্যক্তির সঙ্গে ওই রিটার্নিং কর্মকর্তার ক্ষুদেবার্তা (এসএমএস) চালাচালির স্থিরচিত্র উপস্থান করেন মমতা। তিনি বলেন, বন্দুকের নলের মুখে কাজ করছেন রিটানিং কর্মকর্তারা। সেখানকার ইভিএম পাল্টে দেয়া হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে শিগগিরই আদালতের দ্বারস্থ হবেন জানিয়ে মমতা বলেন, সেই সময় পর্যন্ত ভিভিপ্যাট, ব্যালট ও ইভিএম আলাদা করে রাখতে হবে। ফলাফলে কোনো বিকৃতি হয়েছে কিনা, তা তদন্ত করে দেখা হবে।

এদিন ৮ হাজারের বেশি ভোটে এগিয়ে থাকার দাবি করে তিনি বলেন, একমুহূর্তে এই ব্যবধান শূন্য হয়ে গেলো কীভাবে? সার্ভার ডাউন করে রাখা না হলে পুরো রাজ্যের ফলের থেকে নন্দীগ্রামের ফল আলাদা হয় কীভাবে?

mamta banerjee accepted her defeat

গত রোববার রাতে আসনটির ফলাফল স্থগিত করেন রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী কর্মকর্তা আরিজ আফতাব। ‘আপাতত’ বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী জয়ী হলেও একের পর এক বিতর্ক আসায় নতুন করে ভোট গণনা হতে পারে বলে জানান তিনি।

শুভেন্দু প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে। অনেকটা সাপ-লুডু খেলার মতো হয়ে দাাঁড়ায় হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ফল। এক পর্যায়ে সংবাদ সংস্থা এএনআই জানিয়েছিল, ১ হাজার ২০১ ভোটে জয়ী হয়েছেন মমতা।

পরে আনন্দবাজার জানায়, ১ হাজার ৬২২ ভোটে শুভেন্দুর কাছে হেরে গেছেন মমতা। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, রাজ্যের ২৯২টি আসনের মধ্যে ২১৫টিই তৃণমূলের দখলে, মাত্র ৭৫টি পেয়েছে বিজেপি। আর সংযুক্ত মোর্চা পেয়েছে কেবল একটি আসন, ভোট স্থগিত রয়েছে দুটি আসনে।