advertisement
আপনি দেখছেন

ইসলামিক স্টেটের (আইএস) সিনিয়র সদস্য ও সশস্ত্র সংগঠনটির সাবেক প্রধান আবুবকর আল বাগদাদির ডেপুটিকে আটক করেছে ইরাকি নিরাপত্তা বাহিনী। সামি জসিম নামে আইএসের ওই সিনিয়র সদস্য সংগঠনটির অর্থের তত্ত্বাবধানে ছিলেন। ইরাকের প্রধানমন্ত্রী মোস্তফা আল-কাদিমি গতকাল সোমবার এই তথ্য জানান। ইন্ডিপেনডেন্ট ডট আইই।

sami jashim isiআইএসআই-এর অন্যতম শীর্ষ নেতা সামি জসিমকে আটক করেছে ইরাক

কাদিমি টুইটারে জানান, সামি জসিমকে ইরাকের গোয়েন্দা সংস্থার একটি গোপন অভিযানের মাধ্যমে আটক করা হয়। তবে কোথায় তাকে বন্দি করে রাখা হয়েছে তা জানাননি। সামি জসিম একজন ইরাকি নাগরিক ও আইএসের অন্যতম প্রধান নেতা। আইএস বিশেষজ্ঞ হাসান হাসান বলছেন, যারা আইএসের কার্যক্রম সম্পর্কে মূল্যবান তথ্য দিতে পারে সামি জসিম তাদের একজন। বাগদাদির পরে তিনিই আইএসের দ্বিতীয় সিনিয়র নেতা, যিনি জীবিত।

বাগদাদী নিজেকে ২০১৪ সালে সিরিয়া ও ইরাক সীমান্তবর্তী অঞ্চলের খলিফা ঘোষণা করেছিলেন। পরে ২০১৯ সালে উত্তর-পশ্চিম সিরিয়ায় মার্কিন বিশেষ বাহিনীর অভিযানে তিনি নিহত হন। এরপর ইরাক-সিরিয়ার বেশিরভাগ অঞ্চল থেকে আইএস বিতাড়িত হয়। পশ্চিমা সামরিক কর্মকর্তারা মনে করেন, এখনও দুটি দেশে কমপক্ষে ১০ হাজার আইএস যোদ্ধা রয়েছে, যাদের অধিকাংশই প্রত্যন্ত অঞ্চলে।

iraq pm mustafa al kadhimi 1ইরাকের প্রধানমন্ত্রী মোস্তফা আল-কাদিমি

মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট কর্নেল জোয়েল হারপার রয়টার্সকে বলছেন, আমরা কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযানের বিষয়ে মন্তব্য করব না। তবে আমাদের ইরাকি অংশীদারদের সাধুবাদ জানাই। কারণ তারা আইএস দমনে নিয়মিত অভিযান চালায় ও তাদের ধ্বংসের জন্য কাজ করছে।

মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট ইরাকি নিরাপত্তা বাহিনী এবং কুর্দি নেতৃত্বাধীন সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সের সঙ্গে কাজ করছে। ইরাকে আইএসের সশস্ত্র সদস্যরা এখনও পুলিশ, সেনাবাহিনী এবং ইরাকি আধা সামরিক ইউনিটের বিরুদ্ধে নিয়মিত হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। তারা গত বছর কয়েক ডজন পুলিশ ও যোদ্ধাকে হত্যা করে।

আইএস-এর ওপর একটি বইয়ের লেখক এবং নিউ লাইনস ম্যাগাজিনের প্রধান সম্পাদক হাসান বলেছেন, সামি জসিম আইএসের শীর্ষ নেতৃত্ব পরিষদের সদস্য। এ পরিষদে ৬-১২ সদস্য রয়েছে। তাদের একজন নেতা আবু ইব্রাহিম আল-হাশিমি আল-কুরাইশির ঘনিষ্ঠ সহযোগী সামি জসিম।

গ্রুপের অর্থায়নের তত্ত্বাবধায়ক থেকে শুরু করে ইরাক ও সিরিয়ার মধ্যে কার্যক্রম সমন্বয় করা পর্যন্ত তার ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে। সামি জসিমের আটক ইরাকিদের জন্য একটি বড় ঘটনা। মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের সন্ত্রাসবিরোধী পুরস্কার কর্মসূচি রিওয়ার্ডস ফর জাস্টিস-এর মতে, সামি জসিম আইএসের অর্থ পরিচালনায় সহায়ক ভূমিকা রাখেন।

২০১৪ সালে দক্ষিণ মসুলে আইএস ডেপুটি হিসেবে দায়িত্ব পালন করার সময় তিনি আইএসের অর্থমন্ত্রীর সমতুল্য হিসাবে কাজ করেন। তেল, গ্যাস, পুরাকীর্তি এবং খনিজ সম্পদ বিক্রি ও গোষ্ঠীর রাজস্ব উৎপাদন কার্যক্রম তার হাতে পরিচালিত হত।