advertisement
আপনি দেখছেন

কয়েক মাস পর ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট পদ নেবে স্লোভাকিয়া। এর মধ্যেই দেশটির বার্তা সংস্থা টিএএসআরকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকো। এ ঘটনায় তার সমালোচনা করেছেন দেশটির মুসলিমরা। ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্টের প্রতিবেদনে এমনটাই জানানো হয়েছে।

slovakia pm robart piku

রবার্ট ফিকো বলেন, বিষয়টা অদ্ভুত শোনালেও এটাই সত্যি যে, স্লোভাকিয়ায় ইসলামের কোনো স্থান নেই। আর এসব বিষয়ে স্পষ্টভাবে ও প্রকাশ্যে কথা বলা রাজনীতিবিদদের দায়িত্ব। এই দেশে হাজার হাজার মুসলিম না থাকলেই বরং ভালো হবে। তাদেরকে স্লোভাকিয়ায় প্রবেশ করতে দেয়া হবে না।

তিনি বলেন, ‘মুসলিমরা আসলে দেশের চরিত্র বদলে যাবে। আর আমি দেশের ঐতিহ্য পরিবর্তন করতে চাই না। কারণ এই দেশ কন্সট্যান্টাইন-মেথডিস্ট ঐতিহ্য থেকে সৃষ্টি হয়েছে।’

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, আগামী ১ জুলাই ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট পদে সামিল হবে স্লোভাকিয়া। এই পদটির মাধ্যমে ইউরোপে অভিবাসন ও শরণার্থী সংকট নিয়ে আরো বড় ভূমিকা রাখার সুযোগ পেতে যাচ্ছে দেশটি। তারা দাবি তুলেছে, ইউরোপে প্রবেশের প্রধান পথগুলো বন্ধ করে দেয়া হোক।

এর আগে একবার গ্রিস ও ইতালি থেকে শরণার্থী ও অভিবাসীদের গ্রহণ করতে সদস্য রাষ্ট্রগুলোর ওপর কোটা নির্ধারণ করে দিয়েছিল ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন। সে সময় স্লোভাকিয়াকে ২৬০০ অভিবাসী নিতে বলা হয়েছিল। তখন ওই সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করেছিলেন রবার্ট ফিকো।

প্রধানমন্ত্রীর এমন মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় স্লোভাকিয়ার ইসলামিক ফাউন্ডেশন এক বিবৃতিতে জানায়, তার এমন মন্তব্য শুধু স্লোভাক মুসলিমদেরই ক্ষতি করবে না, বরং সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে দেশের স্বার্থের জন্যও ক্ষতিকর।